মেদনীপ�র

  • দেবের ভূমিতে আক্রান্ত ভারতী,নিরাপত্তারক্ষীর গুলিতে আহত তৃণমূল কর্মী,

    News Bazar24: বুথে এজেন্ট বসাতে গিয়ে ‘নিগৃহীত’ হয়ে কাদলেন ভারতী ।বুথে ঢোকার মুখেই তৃণমূলের মহিলা কর্মীরা তাঁকে বাধা দেয় এবং নির্বাচনী এজেন্টকে বুথে বসাতে গিয়ে তৃণমূল কর্মীদের হাতে ‘আক্রান্ত' হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন ভারতী ঘোষ (Bharati Ghosh)। অপরদিকে এই ঘটনার পরই তাঁর নিরাপত্তা কর্মীর বিরুদ্ধে তৃণমূল কর্মীকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগও উঠে। তৃণমূলের দাবি প্রার্থীর নির্দেশেই গুলি চালান হয়েছে। উল্লেখ্য, ঘাটাল লোকসভা (Lok sabha Election) কেন্দ্রের এই বিজেপি প্রার্থী একসময়ের আই পি এস অফিসার ছিলেন। আজ সকালে তিনি খবর পান কেশপুর এলাকার বেশকিছু বুথে বিজেপির নির্বাচনী এজেন্টেদের বসতে দেওয়া হচ্ছে না। সেরকমই একটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে যান ভারতী। সঙ্গে ছিলেন তাঁর এজেন্ট। কিন্তু বুথে ঢোকার মুখেই তৃণমূলের মহিলা কর্মীরা তাঁকে বাধা দেয়। কার্যত ভারতী ঘোষকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। তাদের অভিযোগ কেশপুরের কোথাও কোনো বিজেপির অস্তিত্ব নেই। তবু প্রার্থী নিজের প্রভাব খাটিয়ে অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। এদিকে তৃণমূলের দাবি, বিজেপি কর্মীরা আগে তৃণমূলকে আক্রমণ করেছে ।তাই এই দাবিকে সামনে রেখে মহিলা কর্মীরা বলতে থাকেন ভারতী ঘটালে ঢুকতে পারবেন না। তাঁর সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা বাহিনীর জওয়ানরাও পরিস্থিতি সামাল দিতে পারছিলেন না। রাজ্য পুলিশ থাকলেও মহিলা পুলিশ না থাকায় কোনও ব্যবস্থা করা যায়নি। বলা বাহুল্য,প্রায় ৪০ মিনিটের বেশি সময় ওই বুথের পাশেই থাকেন ভারতী। তবু তাঁর এজেন্টকে বুথের ভেতর বসানোর ব্যবস্থা করা যায়নি। এরই মাঝে তৃণমূলের মহিলা কর্মীদের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কির সময় মাটিতে পড়ে যান পশ্চিম মেদিনীপুরের এই প্রাক্তন পুলিশ সুপার পড়ে গিয়ে পায়ের নখে চোট লাগে। আরও কিছুটা পরে তাকে কাঁদতে দেখা যায়। টেলিভিশনের ক্যামেরায় সেই ছবিও ধরা পড়ে। তিনি বলেন, ‘ তৃণমূল পরিকল্পনা করে গোটা বিষয়টি করেছে। এই এলাকাতেই কেশপুরের ভেতরে ঢুকতে হয়। তাই এখানেই আমাকে আটকানোর চেষ্টা হয়েছিল। যাতে আমি বাকি বুথগুলোয় যেতে না পারি। তার জন্যই এই ছক করেছে তৃণমূল। একইভাবে হুগলিতে লকেট চট্টোপাধ্যায়কেও আটকে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি সমস্ত জায়গায় ঘুরবো। গোটা কেশপুর জুড়ে সন্ত্রাস চলছে। একাধিক বুথে আমাদের এজেন্টকে বসতে দেওয়া হয়নি।

  • “গোটা বাংলাই একদিন রাম নাম বলবে, আপনার ক্ষমতা থাকলে আটকান” ঘাটালে অমিত শাহ

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ৭ মেঃ মঙ্গলবার ঘাটালের নির্বাচনী  জনসভায় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ বলেন, “দিদি আপনি মানুন আর না মানুন মোদিজি আর একবার  ভারতবর্ষের  প্রধানমন্ত্রী হবেন”।     প্রসঙ্গত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন , তিনি মোদীজিকে প্রধানমন্ত্রী মানেন না। তাঁর কাছে মোদী হলেন এক্সপায়েরি প্রাইম মিনিস্টার। বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর সেই কথা তুলে ধরেই বাংলায় এসে তাঁকে নিশানা করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। পাশাপাশি অমিত শাহ এদিন একইসঙ্গে প্রশ্ন তোলেন, মমতাদিদি আপনি না হয় মোদীজিকে প্রধানমন্ত্রী মানেন না, আপনি কি দেশের সংবিধান মানেন? সংবিধান মানলে আপনি আগামী পাঁচ বছরের জন্য তৈরি হন। ভেবে নিন, আপনি কী করবেন? কারণ আগামী পাঁচ বছর মোদীজিই প্রধানমন্ত্রী থাকছেন। মঙ্গলবার ঐ  জনসভা থেকে অমিত শাহ বলেন, আমি চ্যালেঞ্জ দিলাম, গোটা বাংলাই একদিন  রাম নাম বলবে, আপনার ক্ষমতা থাকলে আটকান। তাঁর প্রশ্ন জয় শ্রী রাম ধ্বনি ভারতে নেওয়া হবে নাতো কি পাকিস্তানে নেওয়া হবে?  আর বিজেপিই এবার ক্ষমতায় আসবে। ক্ষমতায় এলেই অনুপ্রবেশকারীদের তাড়ানো হবে।  ঘাটালবাসীকে অমিত শাহের আবেদন, আপনারা সবাই জয় শ্রীরাম বলুন। জয় শ্রীরামের নাম থেকে কেউ আমাদের  আটকাতে পারবে না বলে তিনি  জানান।  

  • পশ্চিম মেদিনীপুরে 'ফণী' ঝড় আসার প্রাকমুহূর্তে হঠাৎ আবির্ভূত হল এক ঘূর্ণিঝড়,ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি।

    Newsbazar 24 ডেস্ক,৩ মেঃ  পশ্চিম  মেদিনীপুরে  'ফণী'  ঝড় আসার প্রাকমুহূর্তে হঠাৎ আবির্ভূত হল  এক ঘূর্ণিঝড়।  এই আকস্মিক ঘূর্ণিঝড় মাত্র পাঁচ মিনিটের  মধ্যে সব  তছনছ করে দিয়ে। ক্ষতিগ্রস্ত  পশ্চিম মেদিনীপুরের মেদিনীপুর শহরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। ঝড়ের দাপটে উড়ে গেল প্রায় ৪০-৫০টি বাড়ির চাল । ভেঙে পড়ল  বহু গাছ, বিদ্যুতের খুটি। আজ বেলা ১১টার সময়  হঠাৎ করে দমকা হাওয়া উঠে পড়ল পশ্চিম মেদিনীপুরের মেদিনীপুর শহরে । তা নিমেষেই প্রবল ঝড়ে রূপান্তরিত হয়ে তছনছ করে দিল শহরের বিস্তীর্ণ এলাকা। উড়ল ঘরের চালা, ভাঙল গাছপালা বিদ্যুতের খুঁটি ইত্যাদি । ঝড়ের তীব্রতা  এতটাই ভয়াবহ ছিল যে পাঁচ মিনিটের মধ্যেই তালপুকুর এলাকায় লন্ডভন্ড হয়ে যায়। গাছপালা ভেঙে পড়ে বাড়িতে। বিদ্যুতের খুঁটিও বাড়ির চালের উপর পড়ে থাকে। গাছপালা, বিদ্যুতের খুঁটি, তার ছিঁড়ে একেবারে লন্ডভন্ড অবস্থা। সুপার সাইক্লোন ফণী আসার আগেই আচমকাই আগন্তুক এই ঝড়ের প্রভাবে দিশেহারা  মেদিনীপুরের বিস্তীর্ণ অংশের মানুষ। এরপর ফণীর আতঙ্কে রয়েছে ঐ এলাকার মানুষ ।  

  • পশ্চিম মেদিনীপুরের বনশোল গ্রামে নলিকাটা মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো

    পশ্চিম মেদিনীপুর:- সাত সকালে নলিকাটা মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার গুড়গুড়িপাল থানার বনশোল গ্রামে । এদিন সকালে বাড়ির পাশে মাঠের মধ্যে উদ্ধার হয় দেহটি। বছর ২৭ এর রমজান ঘোষি পেশায় দুধ ব্যবসায়ী। প্রতিদিনের মতো বুধবার রাতে মামাবাড়িতে গিয়েছিল রমজান। মামা বাড়ি থেকে ফেরার পথেই এই ঘটনা বলে মনে করছে স্থানীয়রা। শান্ত স্বভাবের রমজানের সঙ্গে কারোর কোন রকম শত্রুতা নেই বলে দাবি স্থানীয়দের।  তবে কি কারনে খুন করা হলো তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। সকালে পুলিশ কুকুর নিয়ে এসে চারিদিক ঘিরে তদন্ত শুরু করে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশ। প্রাথমিকভাবে নলি কাটা ছাড়া দেহে কোন রকম আঘাতের চিহ্ন নেই বলে দাবি পুলিশের। তবে কোনো ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলার নলি কাটা  হয়েছে বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে। দেহটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে মেদিনীপুর মেডিকেলে।

  • জঙ্গলমহল কাপ ও সৈকত কাপ প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

    পশ্চিম মেদিনীপুর:- রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরনায় এবং জেলা পুলিশের উদ্যোগে পশ্চিম মেদিনীপুর জঙ্গলমহল কাপ ও সৈকত কাপ প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হল আজ। আজ মেদিনীপুর শহরের কলেজ ময়দানে এই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের পরিবহন ও পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, সেচ মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র, জেলা পুলিশ সুপার আলোক রাজোরিয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সচিন মক্কর, বিধায়ক প্রদ্যুৎ ঘোষ, পুরপ্রধান প্রণব বসু সহ আন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গরা। গোটা জেলা জুড়ে প্রতিটি থানা এলাকায় সারা বছর ধরে চলা ক্রীড়া প্রতিযোগীতায় সফল প্রতিযোগীদের নিয়ে জেলাস্তরে প্রতিযোগীতা হয়। সেই প্রতিযোগীতায় স্থানাধিকারীদের আজ পুরস্কার প্রদান করা হয়। একই সাথে এখান থেকে রাজ্য স্তরের প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করার জন্য নির্বাচিত করা হবে বলে জানা গেছে। পাশাপাশি আজ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের সহায়তায় পুলিশ লাইন মাঠে পুলিশ ও তাদের পরিবারের দুই  দিন ব্যাপী বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। উপস্থিত ছিলেন ডি আই জি মেদিনীপুর রেঞ্জ  ডি পি সিং, পুলিশ সুপার আলোক রাজরিয়া, সহ অন্যান্য আধিকারিকবৃন্দ।

  • কেন্দ্রের মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পে রাজ্যে সাফল্য না পাওয়ার কারন রাজ্যের ভুল নীতি-শিল্প দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

    অমিয় ভট্টাচার্য, ঝাড়গ্রাম, ৪ ফেব্রুয়ারী :- কেন্দ্রের মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্প পশ্চিম বঙ্গে সাফল্য না মেলার কারন হিসেবে এর রাজ্যের ভুল নীতিকে দায়ী করলেন কেন্দ্রের ভারী শিল্প দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তিনি গতকাল  খড়গপুর আইআইটি তে শিল্পের গবেষণাগার ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি পরিকাঠামো কেন্দ্র গড়ে তোলার জন্য শিল্যানাস করেন। তিনি বলেন বাংলায় ভারী শিল্প না গড়ে ওঠার মূল কারণ জমি অধিগ্রহণ । আরো  সমস্যা রয়েছে । রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা সমস্যা রয়েছে, ঋণ মেলার সমস্যা রয়েছে। এখানে শিল্পে উৎসাহ দেওয়া হয় না ।মুদ্রা ঋণের সুফল পান না এখানকার শিল্পোদ্যোগী রা । এসব অনেক সমস্যার জন্য এখান থেকে চলে গেছে টাটা দের ন্যানো কারখানা। এখানে ভারী শিল্প স্থাপনের জন্য এস ই জেড এর অনুমতি না মেলায় মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বড় বড় শিল্প সংস্থা । এখানে ঢাক ঢোল পিটিয়ে বিশ্ব শিল্প সম্মেলন করা হচ্ছে । শিল্প মন্ত্রী বলছেন ২ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ এসেছে । অথচ আমরা জানতে পারি নি কোথায় শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে। সবই লোক দেখানো। এজন্য রাজ্য সরকারের নীতি বদলাতে হবে।

  • ঝাড়্গ্রামে সিপিএম ও বিজেপি থেকে পঞ্চায়েত মেম্বার সহ 2000 জন কর্মী তৃণমূলে যোগদান

    অমিয় ভট্টাচার্য, ঝাড়্গ্রাম ,৩রা ফেব্রুয়ারীঃ:- বিজেপীর কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃীতিইরানির সভার পরেই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ঐ একই জায়গায় পাল্টা সভা করার কথা জঙ্গলমহল উৎসবের উদ্বোধনে এসে আগেই জানিয়ে ছিল পার্থ চট্টপাধ্যায় | গতকাল সিপিএমের  নব নির্বাচিত পঞ্চায়েত মেম্বার মহাশীষ মাহাত 350 জন তৃনমূলে যোগদান করে এবং জাম্বনী ব্লকের  জয়ী পঞ্চায়েত মেম্বার সবিতা খিলাড়ি 500 জন ও এবং আরও প্রায়  1000 জন বিজেপি  ও সি পি এম কর্মী সমর্থক তৃণমূলে  যোগদান করে এবং তাদের দলীয় পতাকা তুলে দেন সভা মঞ্চ থেকে দলের   মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় । গতকাল ঝাড়গ্রামের গড়শালবনীর একই মাঠেই হয় সভা। উপস্হিত ছিলেন দলের  মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়  ও  একাধিক নেতৃত্ব | পার্থ বাবু আগেই হুঁশিয়ারী দিয়েছিলেন যে সেদিন শুধু ঝাড়গ্রাম জেলার মানুষ মাঠ ভরিয়ে তুলবে তাদের  বাইরের জেলা থেকে   লোকজন কে নিয়েই সভায় মাঠ ভরাতে হবেনা  বিজেপির মত | তৃণমূলের এই  সভাকে ঘিরেই প্রত্যেক ব্লকের অঞ্চলে অঞ্চলে চলছিল জোরকদমে মিটিং মিছিল।জেলার চারটি বিধানসভা থেকে কাতারে কাতারে লোক মাঠ ভরিয়ে তোলে | মানুষ মুখিয়ে ছিল  আজকের  জনসভাকে ঘিরে  | রাজনৈতিক মহল বলছিল  শুধু সময়ের অপেক্ষা রাজ্যের শাসক দল  ও  নেত্রী সম্পর্কে যা অসভ্য ভাষায় কথা বলেগেছিলেন  কেন্দ্রের বস্ত্র মন্ত্রী তার মোক্ষম জবাব দেবে জনগন  |

  • পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিবেশ মেলার উদ্বোধনে পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী

    অমিয় ভট্টাচার্য, পশ্চিম মেদিনীপুর,৩রা ফেব্রুয়ারীঃ:- শনিবার থেকে শুরু হলো  মেদিনীপুর কলেজ ও কলিজিয়েট স্কুল ময়দানে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পরিবেশ দপ্তরের উদ্যোগে  জেলা প্রশাসনের ব্যাবস্থাপনায় শুরু হল দুই দিন ব্যাপী পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিবেশ মেলা।পরিবেশ মেলার উদ্বোধনে শুভেন্দু অধিকারী প্রদীপ প্রজ্বলন করে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন পরিবেশ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, সংগে ছিলেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাপরিষদের সভাধিপতি উত্তরা সিং হাজরা  ,উপস্থিত ছিলেন  বিধায়ক আশীষ চক্রবর্তী, দীনেন রায়, প্রদ্যুৎ ঘোষ, পরিবেশ দপ্তরের কর্মাধ্যক্ষ শ্যাম পাত্র, শৈবাল গিরি ও বিশিষ্টজনেরা।এই মেলা উপলক্ষে একটি শোভাযাত্রাও বের হয়।এই শোভাযাত্রায় স্থানীয় বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা যোগ দেয়। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী জানান যে পরিবেশ কে রক্ষা করতে হলে শুধু মাত্র আইনের শাসন করলে হবেনা, মানুষের মনের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। মেদিনীপুর কালেক্টরেট অফিস এ পরিবেশ দূষণ দপ্তরের একটি অফিস চালু করা হবে, ওখানে এখন থেকে সপ্তাহে তিনদিন করে অফিসারেরা বসবেন, সাধারণ মানুষ ওই অফিসে গিয়ে পরিবেশ সংক্রান্ত অভাব অভিযোগ জানাতে পারবেন। আগামী দিনে প্রতিদিন অফিস টি চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পরিবেশ দূষণ রুখতে সাধারণ মানুষকে নিয়ে ব্যাপক ভাবে প্রচার করা হবে।

  • কাঁথিতে অমিত শাহর সভা শেষে বিজেপি তৃনমূল ভয়াবহ সংঘর্ষ , পার্ট অফিস ও বাইকে আগুন, বাসে ভাঙচুর।

     কাঁথি,৩০জানুয়ারীঃ   মঙ্গলবার পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথিতে সভা করেন বিজেপির জাতীয় সভাপতি অমিত শাহ। অমিত শাহর সভার শেষে  রণক্ষেত্রের আকার নেয়  কাঁথি রোড। তৃণমূল ও বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক  সংঘর্ষ হয় । অমিত শাহর সভায় আসা একাধিক বাসে ভাঙচুর হয়েছে। অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে একাধিক মোটর বাইকে। কাঁথি মেন রোডের উপরে সেই সব জ্বলন্ত বাইক পড়ে থাকতেও দেখা গিয়েছে। এখন পর্যন্ত এই রাজনৈতিক সংঘর্ষে ঠিক কত জন জখম হয়েছেন তা জানা যায়নি। সূত্রের খবর প্রায় শতাধিক লোক আহত। সূত্রের খবর , কাঁথির স্টেশন লাগোয়া জমিতে অমিত শাহর সভা শেষ হতেই। বিভিন্ন জায়গা থেকে  হামলার অভিয়োগ সামনে আসতে থাকে। বিজেপি-র কর্মী-সমর্থকদের অভিযোগ গাড়ি আটকে বাঁশ নিয়ে । জনসভা থেকে ফেরা একাধিক বাসে সমানে ভাঙচুর চালান তৃনমূল কর্মীরা। বহু বাস থেকে আতঙ্কে  বিজেপি-র কর্মী ও সমর্থকরা নেমে পড়েন। অনেকে আতঙ্কে বাসের মধ্য়েই বসে থাকেন। অনেক বিজেপি কর্মী-সমর্থক মার খেয়ে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ফলে দিঘামুখী কাঁথি রোড তৃণমূল ও বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। একাধিক বাসে ভাঙচুর করা হয়। মোটর বাইকে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করে  কাঁথি রোড থেকে আশপাশের এলাকাতেও সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। তৃণমূলের অভিযোগ করে কাঁথির দুরমুঠে তাঁদের কার্যালয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়   সভা থেকে ফেরত আসা লোকজন। বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা গোটা ঘটনার জন্য তৃণমূলের  দিকেও অভিযোগের আঙুল তোলেন। তিনি অভিযোগ করেন বাস ভর্তি বিজেপি কর্মী ও সমর্থকদের উপরে হামলা চালায় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। এমনকী মহিলা কর্মী ও সমর্থকদেরও ছাড়া হয়নি। তাঁদেরও বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ করেন রাহুল সিনহা। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, অমিত শাহ'র সভা থেকে ফেরার সময় আমাদের দলের কর্মীদের ওপর হামলা চালায় তৃণমূল। এটা অত্যন্ত লজ্জাজনক ঘটনা। আমরা এর তীব্র নিন্দা করছি। তৃণমূল নেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, শান্তির পরিবেশকে বিঘ্নিত করতে চায় বিজেপি। তাই এই কাজগুলো দিনের পর দিন ধরে ওরা করে চলেছে। বিজেপি কর্মীরা প্রথমে আমাদের দলীয় কার্যালয়ে আক্রমণ করে। এর ফলেই ক্ষুব্ধ হয়ে পাল্টা জবাব দেন আমাদের দলের কর্মীরা। তাঁর অভিযোগ, দুষ্কৃতীদের নিয়ে এসে সভা ভরিয়েছিল বিজেপি। এঁদের দিয়েই বাসে ভাঙচুর চালিয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি করেছে বিজেপি। বুধবার এর জন্য কাঁথিতে ধিক্কার দিবসের ডাক দিয়েছেন শুভেন্দু। তিনি আরও বলেন আমাদের দলীয় কার্যালয়ে কেউ আক্রমণ করলে আমরা কি তাকে মিষ্টি খাওয়াব?  

  • ঝাড়গ্রামে শুরু হল শ্রমিক মেলা

    অমিয় ভট্টাচার্য, পশ্চিম মেদিনীপুর‌ ৩০শে জানুয়ারীঃ রাজ্য সরকারের সামাজিক সুরক্ষা যোজনা সম্পর্কে সাধারন মানুষকে অবহিত করতে ঝাড়গ্রামে অনুষ্ঠিত হল শ্রমিক মেলা। দৃষ্টিহীন ব্যাক্তিকে দিয়ে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন হল ঝাড়গ্রাম শ্রমিক মেলায়। উদ্বোধন করলেন বুলেট শবর,তার বাড়ি জামবনী  ব্লকের জমুনাসোল। এই মেলা দু-দিন ধরে চলবে। রাজ্য সরকারের সামাজিক সুরক্ষার বিভিন্ন স্টলের পাশাপাশি রয়েছে সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের ট্যাবলো। এই ট্যাবলোগুলো থেকে সেই সমস্ত সরকারী দপ্তর সাধারন মানুষের কি কি যোজনার লাভ দিতে পারে সে সম্পর্কে জানতে পারবে সকলে। পাশাপাশি আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া মানুষরা এখানে সামাজিক সুরক্ষা যোজনার আওতায় নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গোপিবল্লভপুরের বিধায়ক চুড়ামনি মাহাত,ঝাড়গ্রাম জেলাপরিষদের সভাধিপতি মাধবী বিশ্বাস সহ বিশিষ্ট আধিকারিকরা। এখনও পর্যন্ত ঝাড়গ্রামে মােট ৯৩০০০ অসংগঠিত শ্রমিক সামাজিক সুরক্ষা যােজনার আওতায় এসেছে তার মধ্যে অন্যান্য অসংগঠিত পেশায় নিযুক্ত ৫৮০০০, নির্মান শ্রমিক ৩০০০০ ও ৫০০০ পরিবহন শ্রমিক নথিভুক্ত হয়েছে। শবর-লােধা জনজাতির মধ্যে এখনও পর্যন্ত ২৩০০ শ্রমিককে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে।শ্রমিক মেলার প্রচারের অঙ্গ হিসাবে একটি পথ নাটিকাও জেলার বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হয়।