কলকাতা

  • সারদা তদন্তে গতি, রাজীবের পর তলব প্রাক্তন পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ ও দিলীপ হাজরাকে।

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ২৮ মেঃ লোকসভা ভোট মিটতেই সারদা তদন্তে গতি আনতে সচেষ্ট হল সিবিআই।  এর আগে শীর্ষ আদালতের রক্ষাকবচ উঠে যাওয়ার পর কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে নোটিশ ধরিয়েছে সিবিআই। সিবিআই সারদা মামলায় এডিজি সিআইডির অফিসে গিয়ে নোটিশ ধরানোয় সমস্যা বেড়েছে রাজীব কুমারের।  আবার তৎকালীন বিধানগরের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার অর্ণব ঘোষকে তলব করেছে। তলব করা হয়েছে পুলিশ অফিসার দিলীপ হাজরাকে। লোকসভার ভোট মিটতেই সিবিআই হানা দেয় কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের বাড়িতে।  রবিবার সন্ধ্যায় রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআইয়ের চার আধিকারিক নোটিশ দিতে আসে। বাড়িতে তিনি অনুপস্থিত থাকায়, সিবিআই আধিকারিকরা ভবানিভবনে এডিজি সিবিআই অফিসে পৌঁছন। কারণ এদিনই এডিজি সিবিআই পদে ফেরানো হয় তাঁকে। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য অর্ণব ঘোষকে মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায় মালদার পুলিশ সুপার পদে বসিয়ে পুরুস্কৃত করেছিলেন। কিন্তু  লোকসভা ভোটের আগে তাকে নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে সরিয়ে  দেয়।     

  • নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সাংবিধানিক সৌজন্যে না অন্য কিছু?

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ২৮ মেঃ আগামী বৃহস্পতিবার দ্বিতীয়বার  প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন  নরেন্দ্র মোদি। সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর , মোদির এই শপথগ্রহণে অংশ নেবেন  পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার নবান্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয় দিল্লির তরফে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো মেনে দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা জানান। মমতার এমন সিদ্ধান্তে অনেকেই বিস্মিত। কারন আজকের দিনে , যেদিন তৃণমূ‌ল কংগ্রেসের অনেক নেতা বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আরও অনেকে যোগ দিতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘আমি অন্য মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও কথা বলেছি। এটি একটি অনুষ্ঠান। কিছু সাংবিধানিক কর্তব্য থাকে, যা আমরা পূর্ণ করার চেষ্টা করব। আমরা ওই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার চেষ্টা করব।''  মোদীর দ্বিতীয় শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার জন্য বহু বিশ্বনেতা, মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী নেতানেত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এবারের নির্বাচনে বাংলায় বিজেপি ৪২ আসনের মধ্যে ১৮টি আসনে জিতেছে।  এদিকে তৃণমূল ২০১৪-য় ৩৪টিআসন জিতলেও এবার তারা নেমে এসেছে ২২টিতে। বিজেপি জানিয়ে দিয়েছে লড়াই এখনও শেষ হয়নি। দু'জন তৃণমূল বিধায়ক ও পঞ্চাশেরও বেশি পৌরসভার কাউন্সিলর, যাঁদের অধিকাংশই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের তাঁরা আজ বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। বিজেপির মতে দলবদলের এটা সবে শুরু। বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় মমতাকে মনে করিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর সেই বক্তৃতার কথা, যেখানে তিনি বলেছিলেন, ‘‘৪০-এরও বেশি তৃণমূল বিধায়ক'' তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন।  বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় নির্বাচনের সময়ে বিজেপির পক্ষে এরাজ্যের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, ‘‘পশ্চিমবঙ্গে যেমন সাত পর্যায়ে ভোট হল, তেমনই বিজেপিতে নেতাদের যোগদানও সাত পর্যায়ে হবে। আজ ছিল কেবল তার প্রথম পর্যায়।'' সেই সময়ে তাঁর পাশে বসেছিলেন। প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে বিজেপিতে যোগ দেন মমতা-ঘনিষ্ঠ নেতা মুকুল রায়। আজ বিজেপিতে যোগ দেওয়া নেতাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন শুভ্রাংশু রায়।  তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগদান— এর ফলে ইঙ্গিত মিলেছে লোকসভা নির্বাচনের জয়ের সুফলকে কাজে লাগিয়ে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে চমকপ্রদ ফল করা। দলের পরাজয় ও বিজেপির উত্থান দেখে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  প্রধানমন্ত্রী মোদী ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে অভিযুক্ত করেন তাঁর সরকারকে হয়রান‌ করার জন্য। রাজ্যে ‘এমার্জেন্সির মতো পরিস্থিতি' তৈরি করে বিজেপি বাংলায় জিততে চাইছে বলেও অভিযোগ করেছিলেন তিনি।  তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, আমরা সাংবিধানিক সৌজন্য বজায় রেখেই প্রধানমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে থাকব। রাজনৈতিক সৌজন্য রাখতে আমরা জানি। আমরা সম্মান করি ফেডারেল স্ট্রাকচারকে। বিরোধীরা এই ব্যাপারে মমতাকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি। তাদের বক্তব্য  তিনি এখন ফেডারেল স্ট্রাকচারকে সন্মান করার কথা বলছেন। কিন্তু এই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা থেকে এই রাজ্যের মানুষকে বঞ্চিত করেছেন তখন তার মুখে ফেডারেল স্ট্রাকচার কোথায় ছিল। (ছবিটি ফাইল চিত্র)    

  • মুকুলের হাত ধরে তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাচ্ছেন ৩ বিধায়ক এর সাথে ২ পৌরসভা যাচ্ছে বিজেপির দখলে

     ডেস্ক,২৬শে মেঃ সাসপেন্ডেড তৃনমূল বিধায়ক শুভ্রাংশু রায় এবং তার সাথে আরও  দুই  তৃণমূল বিধায়ক যোগ দিতে চলেছেন বিজেপিতে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে । মুকুল রায়ের সঙ্গে তিন বিধায়ক এখন দিল্লিতে অবস্থান করছেন। তাঁরা শীঘ্রই  য়োগ দেবেন  বিজেপিতে। একইসঙ্গে দুই পুরসভার ২৯ জন কাউন্সিলার  তৃণমূল ছেড়ে বিজেপির ছত্রছায়ায় আসতে চলেছেন বলে সূত্রের খবর। সুত্রের আরও খবর রবিবার থেকেই নতুন শুভ্রাংশু বিজেপিতে যোগদানের জল্পনা শুরু হয়েছিল। দফায় দফায় মুকুল রায়ের সঙ্গে বৈঠক হয়ে শুভ্রাংশুর। সোমবার সেই জল্পনার অবসান ঘটিয়ে দিল্লি রওনা দেন শুভ্রাংশু। সঙ্গে আরও দুই বিধায়ক রয়েছেন। একজন অর্জুন সিংয়ের আত্মীয় তথা নোয়াপাড়া কেন্দ্রের বিধায়ক সুনীল সিং। আর মুকুল রায় ঘনিষ্ঠ শীলভদ্র দত্ত রয়েছেন দিল্লিতেই। সব কিছু ঠিকঠাক চললে মঙ্গলবারই তাঁদের রং বদল হতে চলেছে । সৌজন্যে মুকুল রায়। একেবারে দলবেঁধে তাঁরা গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে চলেছেন বলে জানা গিয়েছে। কেননা অনুগামী পরিবেষ্টিত হয়ে তিন বিধায়ক এখন অবস্থান করছেন দিল্লিতে। কাঁচরাপাড়া ও হালিশহর পুরসভার ২৯ জন কাউন্সিলররাও শুভ্রাংশুদের সঙ্গে দিল্লি গিয়েছেন। কাঁচরাপাড়ার ১৬ জন ও হালিশহরের তিনজন বিধায়ক দল পরিবর্তন করতে পারেন। ফলে এই দুই পুরসভায় ক্ষমতা হারাতে পারে তৃণমূল। ক্ষমতা হস্তান্তর হতে পারে বিজেপির হাতে। মঙ্গলবার দলবদলের পর প্রথম কোনও পুরসভা পেতে পারে বিজেপি।  এ ছাড়াও নৈহাটি, কল্যাণী পুরসভার কয়েকজন কাউন্সিলরও দিল্লি গিয়েছেন বিজেপিতে যোগ দিতে।  

  • আগামীকাল উচ্চমাধ্যমিকের ফল, ঘরে বসেই কীভাবে রেজাল্ট জানবেন দেখে নিন

    Newsbazar24, ডেস্ক,২৬ মেঃ আগামীকাল  সোমবার, ২৭ মে প্রকাশিত হতে চলেছে  উচ্চ মাধ্যমিকের ফল। রীতি মেনে  বিধাননগরের বিদ্যাসাগর ভবনে সাংবাদিক সম্মেলন করে ফল ঘোষণা করা হবে। সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস জানান, ১০ জনের মেধাতালিকাও প্রকাশ করা হবে। তারপরই ফলাফল জানা যাবে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে। এছাড়া এসএমএসের মাধ্যমেও জানা যাবে ফলাফল। মার্কশিট দেওয়া শুরু হবে সোমবার সকাল ১০টায় ফলাফল প্রকাশের পরই। সেদিনই মার্কশিট হাতে পেয়ে যাবেন পড়ুয়ারা। ফলাফল জানা যাবে ওয়েবসাইটে। ওয়েবসাইট গুলি হল- wbchse.nic.in, wbresults.nic.in, exametc.com, results.shiksha, westbengal.shiksha, westbengalonline.in, indiaresults.com, examresults.net, technoindiagroup.com, technoindiauniversity.ac.in, tigpublicschool.org। এসএমএস এর মাধ্যমে জানা যাবে ফল। সোমবার সাংবাদিক সম্মেলনেই আগামী বছরের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার দিনক্ষণ জানানো হবে। মহুয়াদেবী জানান, মার্কশিটে গ্রেডেশনের উল্লেখ থাকবে। একইসঙ্গে জানিয়ছেন যে ওয়েবসাইট থেকে ফলাফল জানা যাবে। এছাড়াও এসএমএসের মাধ্যমে জানতে হলে WB12 <রোল নম্বর টাইপ করে পাঠাতে হবে ৫৪২৪২/৫৬২৬৩/৫৬৭৬৭৫০ নম্বরে। তারপরই এসএমএসে জানা যাবে ফলাফল। এবার উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৮ লক্ষ ১৬ হাজার ২৮৩ জন। পরীক্ষা শুরু হয় ২৬ ফেব্রুয়ারি। শেষ হয় ১৩ মার্চ। সোমবার পরীক্ষার ৭৪ দিনের মাথা প্রকাশিত হতে চলেছে  উচ্চ মাধ্যমিক ফল। সকাল ১১টা থেকে ওয়েবসাইট নিজেদের রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিলেই জানতে পারবেন পরীক্ষার্থীরা। উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষা সংসদের সঙ্গে যুক্ত সমস্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষককে  ইতিমধ্যেই রেজাল্ট নিতে প্রতিনিধি পাঠাতে বলা  হয়েছে। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ক্যাম্প অফিসও খোলা  হয়েছে এর জন্য। সেখান থেকেই প্রতিনিধিরা মার্কশিট পেয়ে যাবেন। গত বছর জুন মাসের ৮ তারিখ  উচ্চ মাধ্যমিকের রেজাল্ট ঘোষিত হয়। এবার ফল প্রকাশিত হচ্ছে মে মাসের শেষ দিকেই। এমনিতেই শিক্ষা মহল মনে করে, উচ্চ মাধ্যমিকের পর রাজ্যের পড়ুয়ারা ভিন রাজ্যে পড়তে যান। অনেকে সর্ব ভারতীয় পরীক্ষায় বসেন। তাই তাঁদের কথা ভেবে পরীক্ষার ফল আগে প্রকাশ করতা উচিত। গতবার  উচ্চ মাধ্যমিকে পাশের হার ছিল ৮৩.৭৫ শতাংশ। গত বছরের উচ্চ মাধ্যমিকের  পরীক্ষায় প্রথম স্থান পেয়েছিলেন  কলা বিভাগের ছাত্র গ্রন্থন সেনগুপ্ত। দ্বিতীয় হয়েছিলেন ঋত্বিককুমার শাহু।

  • রাজীব কুমারের বিরুদ্বে সিবিআই-র সমন, গ্রেপ্তার করা হতে পারে আগামীকাল।

     Newsbazar24, ডেস্ক,২৬ মেঃ কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে  আগামীকাল সকাল ১০টায় কলকাতার সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের দফতর সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে । সূত্রে জানা যায় সারদা  চিট ফান্ড কাণ্ডের সঙ্গে তাঁর সংযোগ নিয়েই তাঁকে প্রশ্ন করা হবে। সারদা মামলায় এডিজি সিআইডির অফিসে গিয়ে নোটিশ ধরানোয় সমস্যা বাড়ল রাজীব কুমারের। এদিন সিবিআই হানা দেয় কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের বাড়িতে। রবিবার সন্ধ্যায় রাজীব কুমারের বাড়িতে এসে সিবিআইয়ের চার আধিকারিক নোটিশ দিতে আসে। বাড়িতে তিনি অনুপস্থিত থাকায়, সিবিআই আধিকারিকরা ভবানিভবনে এডিজি সিবিআই অফিসে পৌঁছন। কারণ এদিনই এডিজি সিবিআই পদে ফেরানো হয় তাঁকে। এদিন প্রথমে কলকাতা পুলিশ কমিশনারের ২ নম্বর লাউডন স্ট্রিটে আসেন সিবিআই আধিকারিকরা । এখানকার নিরাপত্তারক্ষীরা জানান, এখন এখানে থাকেন না রাজীব কুমার। এখানে থাকেন বর্তমান পুলিশ কমিশনার। রাজীব কুমার পার্কস্ট্রিটে আইপিএস কোয়ার্টারে থাকেন। সেখানেও দেখা না মেলায় রাজীব কুমারের অফিসে নোটিশ দিয়ে আসেন সিবিআই আধিকারিকরা। এদিন কলকাতা পুলিশ সিবিআইয়ের সঙ্গে সহযোগিতাই করেন। এর আগে রাজীব কুমারের বাড়িতে হানা দিলে কলকাতা পুলিশের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন। সিবিআই আধিকারিকদের আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ধরনায় পর্যন্ত বসেন। এর আগে আজই  সিবিআই জানিয়েছিল, রাজীব কুমারকে দেশ ছেড়ে যেতে দেওয়া হবে না। বিমানবন্দর ও বন্দরে লুক আউট নোটিশ জারি করা হয়। শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট সারদা কেলেঙ্কারিতে গ্রেফতারি এড়াতে আইনি সুরক্ষার মেয়াদ বাড়ানোর রাজীব কুমারের আবেদন খারিজ করে দেয়। সিবিআই সূত্রে জানা যায় ,আগামীকাল যখন তিনি সিবিআইয়ের কলকাতা অফিসে হাজিরা দিতে সল্ট লেকে যাবেন তখন তাকে  গ্রেফতার করা হতে পারে।

  • ভূমিকম্পে কেপে উঠলো বাংলার বেশ কিছু জেলা ! আপনি কি অনুভূতি পেয়েছেন ?

    News Bazar24 : ভূমিকম্প অনুভূতি হলো বাংলায়। সকাল ১০টা বেজে ৪০ মিনিট কম্পন অনুভূত হয়। ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে মালদা, বর্ধমান। বাঁকুড়া, পুরুলিয়াতেও অনুভূত কম্পন। কয়েক সেকেন্ড কম্পন অনভূত হয়। কেঁপে ওঠে বাড়ির আসবাপত্র, ফ্যান, খাট-বিছানা। আতঙ্কে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসে মানুষ। অনেক মহিলাকে শঙ্খ বাজাতে দেখা যায়। আসানসোল, দুর্গাপুরেও কম্পন অনুভূত হয়। কম্পন টের পাওয়া যায় বীরভূমেও। আতঙ্ক ছড়ায় স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্য়ে।

  • "উন্নয়ন বেশি করেছি বলেই হার হল" আর “যে গরু দুধ দেয় তার লাথি একটু আধটু খেতে হয়”:- মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

    Newsbazar 24, ডেস্ক, ২৫ মেঃ লোকসভা নির্বাচনে বিপর্যয়ের পর  কালীঘাটে দলের পর্যালোচনা বৈঠকের পর  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের  বলেন, এই নির্বাচন প্রমাণ করে দিল উন্নয়নের কোনও দাম নেই। ভোটের সময় টাকা ছড়ালেই ভোটে জেতা যায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন  ভোট বিক্রি হয়েছে । উন্নয়নকে মানুষ মনে রাখেনি। এক-একটা পরিবারকে পাঁচ হাজার টাকা করে দিয়েই ভোট কিনেছে বিজেপি। নির্বাচন  কমিশন থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংস্থাকে করায়ত্ত করা হয়েছে, আবার একইসঙ্গে বাম ভোটকেও রামে রূপান্তরিত করা হয়েছে। সব কিছুতেই টাকার  খেলা হয়েছে । তিনি আরও  বলেন, আমার চেয়ারের প্রতি কোনও মোহ নেই।  রেলমন্ত্রীর পদ ছেড়ে চলে এসেছি। এই পদও ছেড়ে দিতে কুণ্ঠা নেই। মমতা বলেন, আমি বিশ্বাস করি, মানুষের জন্য কাজ করতে চেয়ারের কোনও প্রয়োজন নেই আমার। আবার এমনটাও বিশ্বাস করি, আমার চেয়ারের প্রয়োজন না থাকলেও, চেয়ারের প্রয়োজন আছে আমাকে। তাই দলের অনুরোধে এখনও আমি মুখ্যমন্ত্রী। দল আমার প্রস্তাব মানেনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ভোটের জন্য পাঁচ মাস কোনও কাজ করা যায়নি। উন্নয়ন স্তব্ধ হয়ে আছে। নির্বাচন কমিশন-সহ বিভিন্ন সংস্থাকে কাজে লাগিয়ে টাকা ছড়িয়ে ভোটে জিতছে একটা দল। তাঁর অভিমান, এখন তো মনে হচ্ছে, একটু বেশি করে ফেলেছি। তাই এখন দলটা বেশি করে করব। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগে বিরোধীরা সর্বদাই সরব হয়ে এসেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তা কার্যত স্বীকার করে নিলেন। তাঁর যুক্তি, তিনি কখনই সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করেন না। তাঁর কাছে হিন্দু-মুসলিম-শিখ-খ্রিস্টান সব ধর্মই সমান। এবারও  তিনি ইফতারে যাবেন। এ প্রসঙ্গেই তাঁর মন্তব্য, যে গরু দুধ দেয় তার লাথি একটু আধটু সহ্য করতেও হয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  বলেন, বাংলায় সাম্প্রদায়িক বিষ ছড়িয়ে লোকসভা ভোটে জিতেছে বিজেপি। তাঁর দাবি, ভোট হয়েছে হিন্দু-মুসলিম ধর্মের ভিত্তিতে। আমি এই থিওরি মানি না। কখনও মানতেও পারব না। বাংলা কখনও হিন্দু-মুসলিম, শিখ-খ্রিস্টান ভাগভাগি মানেনি, এবার জোর করে তা মানানো হয়েছে। উগ্র হিন্দুত্ববাদ, উগ্র মৌলবাদ আমি পছন্দ করি না। আমি এসবের বিরুদ্ধে। মমতা বলেন, প্রতিটি ধর্মের প্রতি আমার সহনশীলতা রয়েছে। তাই আমি ইফতারের আমন্ত্রণ নিই, ইফতারে যাই, এবারেও যাব। আমার কাছে সবাই মানুষ। মানব ধর্মই সবার আগে।  এই প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সদ্য সাংসদ এবং বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন  আমরা টাকা দিয়ে ভোট কিনিনা। মানুষ আমাদের স্বতঃ স্ফূর্ত ভাবে ভোট দিয়েছেন আর রাজ্যে আমরা ক্ষমতায় নেই তাই আমাদের ভোট কেনার প্রশ্ন নেই। ভোট কারা লুট করেছে তা মানুষ দেখেছে আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদত্যাগ প্রসঙ্গে একে  নাটক বলে অভিহিত করেছেন কারন তিনি এইসব নাটক করতে ভালবাসেন।    

  • “উনিশে হাফ, একুশে সাফ” নয়া স্লোগান বিজেপির, বললেন দিলীপ ঘোষ

    Newsbazar24: ,ডেস্ক, ২৪মে: বাংলায় এবার বিজেপির মহা-উত্থান ঘটেছে। বিজেপির এই জয়কে কেউ বলছেন অশনি সংকেত, কেউ বলছেন পরিবর্তন ঘটতে চলেছে বাংলায়। তার শুভ সূচনা হল এই লোকসভা নির্বাচন থেকে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি বঙ্গে দলের এই উত্থানের পর স্লোগান দিয়েছেন - উনিশে হাফ, একুশে সাফ। এটাই নয়া স্লোগান বিজেপির।  বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন  সদ্য  সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলকে তৃণমূলের গ্রহণ করা উচিত । মেদিনীপুর  লোকসভা কেন্দ্র থেকে  তৃণমূল প্রার্থী মানস ভুঁইঞ্যাকে পরাজিত করে সাংসদ হয়েছেন। তিনি বলেন, “হার স্বীকার করতে পারছে না তৃণমূল। সঠিকভাবে এই ফলকে গ্রহণ করা উচিত। ভয় দেখাতে যদি তৃণমূল সন্ত্রাস করে, এবং আমাদের কর্মীদের ওপর হামলা চালায় তাহলে আমরা সঠিকভাবে এর  উপযুক্ত জবাব দেব ”। দিলীপ ঘোষের আরও  অভিযোগ, বিরোধীদলের প্রার্থীদের নজিরবিহীনভাবে আক্রমণ করেছে তৃণমূল আশ্রিত গুণ্ডারা। লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে যোগ্য জবাব দিয়েছে । বাংলার মানুষ আমাদের ওপর ভরসা করেছেন। বাংলায় অপশাসনের অবসান চান তাঁরা, বিকল্প হিসাবে বিজেপিকে নির্বাচিত করেছেন বাংলার মানুষ”।  তৃণমূলের নেতারা বিজেপিতে যোগ দেওয়া প্রসঙ্গের  প্রশ্নের উত্তরে বিজেপির রাজ্য সভাপতি জানান, যাঁরা তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়তে চান, তাঁদের জন্য দরজা খোলা আছে। বৃহস্পতিবার লোকসভা নির্বাচনের বাংলার সঙ্গে সঙ্গে দেশজুড়ে গেরুয়া সুনামি বয়ে যায়।এ রাজ্যে ৪২ আসনের মধ্যে ১৮ আসনে পদ্ম ফুটেছে। ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে বঙ্গে দুটি আসন জিতেছিল গেরুয়া শিবির। ২০১৪  লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় ৩৪টি আসন পেয়েছিল ঘাসফুল, যদিও এবার তা কমে দাঁড়িয়েছে ২২ এ। গতবার রায়গঞ্জ মহম্মদ সেলিম এবং মুর্শিদাবাদ লোকসভা আসনে বদরুদ্দোজা খান জয়লাভ  করেছিলেন। এবার খাতাই খুলতে পারে নি বামেরা।  

  • পরাজয়ের কারণ নিয়ে পর্যালোচনার জন্য জরুরী বৈঠক ডাকলেন তৃণমূল সুপ্রিমো আগামীকাল

    Newsbazar ,ডেস্ক, ২৪ শে মেঃ তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  বলেছিলেন তৃণমূল ৪২-এ ৪২ পাবে ।  কিন্তু তা হয়নি কমে অর্ধেক হয়ে গিয়েছে তৃণমূল। বাংলায়  উত্থান হয়েছে বিজেপির । এক লাফে ২ থেকে ১৮। পাশাপাশি বিজেপিকে ভারত ছাড়া করার ডাক দিয়েছিলেন  তিনি। দলের অনেকেই আশা করেছিলেন বিজেপিকে পরাজিত করে নতুন যে সরকার দিল্লিতে তৈরি হবে তাতে বড় ভূমিকা নেবে তৃণমূল । কিন্তু ফলাফল হয়েছে একেবারে উল্টো। রাজ্যে  ৪২টির মধ্যে ১৮টি আসন জিতেছে গেরুয়া শিবির। তৃণমূলের দখলে  আছে ২২ টি আসন। তবে আগামী দিনে রাজ্যে নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখা তৃণমূলের কাছে বেশ শক্ত ব্যাপার বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। এমতাবস্থায় পরাজয়ের কারণ নিয়ে পর্যালোচনার জন্য দলের সাংসদ থেকে শুরু করে বিধায়ক দলীয় প্রার্থী,  এবং জেলার নেতাদের কাল শনিবার নিজের  কালীঘাটের বাড়িতে বৈঠকে ডাকলেন মমতা।   লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল সম্পূর্ণ প্রকাশ হওয়ার আগেই টুইট করে প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি লিখেছিলেন , "জয়ীদের   অভিনন্দন। আমাদের ফল এরকম কেন হল তা আমরা খতিয়ে দেখব"। পাশাপাশি তিনি লিখেছেন, "পরাজিত হওয়া মানেই হেরে যাওয়া নয়"। এ ব্যাপারে তৃণমূলের এক দলীয় নেতা জানান, "বিজেপির  এই উত্থান আমাদের চমকে দিয়েছে। জনমত যে এভাবে আমাদের বিপক্ষে যাবে তা আমরা বুঝতেই পারিনি। এমতাবস্থায় বেশি দেরি হয়ে যাওয়ার আগে নিজেদের সাংগঠনিক ভুল-ত্রুটি সংশোধন করে নেওয়া প্রয়োজন। আর সে কারণেই নেত্রী বৈঠকে ডেকেছেন"।  

  • মুকুল পুত্র বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়কে ৬ বছরের জন্য বরখাস্ত করল তৃণমূল কংগ্রেস।

    Newsbazar ,ডেস্ক, ২৪ শে মেঃ তৃনমূলের বীজপুরের বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়কে  শুক্রবার ৬ বছরের জন্য  বরখাস্ত করল তৃণমূল কংগ্রেস। দলবিরোধী কথা বলার জন্য তাঁর বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হল। শুক্রবার সন্ধ্যায় দলের সাধারণ সচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় একটি সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়ে দেন, শুভ্রাংশুকে দলবিরোধী কথা বলার জন্য  ছ'বছরের জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে।  আমাদের দলের শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কমিটি দলের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করার পরে তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্বান্ত  হল।''  ব্যারাকপুর লোকসভার অন্তর্গত বীজপুর বিধানসভার দু'বারের বিধায়ক শুভ্রাংশু সাংবাদিক সম্মেলনে তাঁর বাবার সাংগঠনিক দক্ষতার প্রশংসা করেন এবং বলেন তিনি তাঁর বিধানসভা এলাকায় তাঁর দলকে  লীড দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তা করতে তিনি ব্যর্থ হন, কারণ তাঁর বাবার সাংগঠনিক ক্ষমতা তাঁর থেকে অনেক  উন্নত। শুভ্রাংশু বলেন, ‘‘আজ আমার একথা মেনে নিতে কোনও অসুবিধা নেই যে আমি আমার বাবার কাছে হেরে গিয়েছি। তিনি বঙ্গ রাজনীতির প্রকৃত চাণক্য। আমাদের দল হেরে গিয়েছে এবং মানুষ আমাদের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে। আমাদের উচিত এটা মেনে নেওয়া।''মুকুল রায়  বিগত ২০১৭ সালের নভেম্বরে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। সাম্প্রতিক  লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির এই অভূতপূর্ব সাফল্যের পিছনে ছিলেন তিনি।  ভোটে খারাপ ফলাফলের পরে তৃণমূল নেতৃত্ব আজ তাদের বক্তব্য জানাল  পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মাধ্যমে। পার্থ বলেন, ভোটে হেরে যাওয়া মানেই পরাজয় নয় এবং বিজেপির এই সংখ্যাগরিষ্ঠতা একটা ক্ষণস্থায়ী পরিস্থিতি যা খুব শীঘ্রই মিলিয়ে যাবে। এটা রাজনৈতিক যাত্রার অপরিহার্য অঙ্গ। বিজেপি মিথ্যে কথা ছড়িয়ে ভোটে জিতেছে। এটা একটা ক্ষণস্থায়ী পরিস্থিতি, যা শিগগিরি বদলেও যাবে। তার সাসপেন্ড হওয়া সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি বলেন  দমবন্ধ হয়ে আসছিল ওই দলটায়। সাসপেন্ড করায় মুক্ত বাতাসে ফিরে এলাম যেন। সেইসঙ্গে তিনি জানালেন বাবার সঙ্গে কথা হয়েছে, বাবা প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছেন।