উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর

  • দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সভাধিপতির পদে লিপিকা রায়

    অজয় সরকার,বালুরঘাট, ১২ সেপ্টেম্বর: অবশেষে দীর্ঘ জল্পনার অবসান ঘটিয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সভাধিপতি দ্বায়িত্ব নিলেন লিপিকা রায়। বুধবার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদে নতুন সভাধিপতি হিসাবে শপথ গ্রহন করেন তিনি। এদিন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার অতিরিক্ত জেলা শাসক (‌‌ উন্নয়ন)‌ কৃত্তিবাস নায়েক জেলা পরিষদের আত্রেয়ী সভাকক্ষে লিপিকা রায়কে শপথ বাক্য পাঠ করান। অপরদিকে জেলা পরিষদের সহকারী সভাধপতি হিসাবে শপথ গ্রহন করেন ললিতা টিগ্গা। তিনি গতবারে জেলা পরিষদের সভাধিপতির দায়িত্বে ছিলেন। তবে এদিন সভাধিপতি ও সহকারী সভাধিপতি শপথ গ্রহন করলেন জেলা পরিষদের বাকি সদস্যদের এদিন কোন দপ্তরের কর্মাধ্যক্ষ পদে ঘোষণা করা হয়নি। প্রসঙ্গত, এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের ১৮ টি আসনের সবকটিতেই জয়লাভ করে তৃণমূল কংগ্রেস। নির্বাচনের ফলাফলের পর থেকেই সভাধিপতি কে হবে তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। এদিন জল্পনার অবসান ঘটিয়ে জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি বিপ্লব মিত্র ঘনিষ্ট লিপিকা রায়কেই সভাধিপতি হিসাবে মনোনীত করা হয়। শপথ বাক্য পাঠ করার পরে এদিন জেলা পরিষদের সামনেই নতুন জেলা পরিষদের সভাধিপতিকে ঘিরে একটি সম্বর্ধনা সভার আয়োজন করা হয়েছিল। এদিনের শপথ গ্রহন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তপনের বিধায়ক তথা মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা, বালুরঘাট লোকসভার সাংসদ অর্পিতা ঘোষ, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি বিপ্লব মিত্র। এবারের জেলা পরিষদের নির্বাচনে গঙ্গারামপুর জেলা পরিষদের আসন থেকে লিপিকা রায় বিপুল ভোটে জয়লাভ করেছিলেন। জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি বিপ্লব মিত্র ঘনিষ্ট লিপিকা রায় অনেক দিন ধরেই স্বক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। গঙ্গারামপুরের সুকদেবপুর, জাহাঙ্গীরপুর এলাকায় তিনি মূলতঃ কাজ করেন। এদিন শপথ গ্রহনের পরে লিপিকা রায় জানান, এবারে শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় বাড়তি গুরুত্ব দেবেন তিনি। তবে জেলা পরিষদের সভাপতির নির্দেশে তিনি জেলার উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাবেন। তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র জানান, এবারে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদে সভাধিপতি, সভাধিপতি সহ সমস্ত কর্মাধ্যক্ষদের গুরুত্ব দিয়ে ঠিক করা হচ্ছে। গত ৫ বছর দায়িত্ব নিয়ে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করার জন্য বিদায়ী সভাধিপতিকে সহকারী সভাধিপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর নির্দেশেই জেলার কাজের উন্নয়নে গতি আনতে নতুন করে বোর্ড গঠন করা হচ্ছে।

  • হাতুড়ে চিকিতসকের হাতে অবৈধ গর্ভপাতের অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

    অজয় সরকার, বালুরঘাট,১২ সেপ্টেম্বর: তৃণমূল কাউন্সিলার তথা এলাকার হাতুড়ে চিকিতসকের হাতে অবৈধ গর্ভপাতে নাবালিকা মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্তকে গ্রেফতারে দাবিতে থানা ঘেরাও করল বিজেপি। বুধবার বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযুক্তকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবীতে বংশীহারি থানার ডেপুটেশন দেওয়া হয়। পরে এদিন বিকেলে বুনিয়াদপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বিজেপির পক্ষ থেকে একটি পথ সভার অয়োজন করা হয়। বিজেপির অভিযোগ, অভিযুক্ত তৃণমূলের বুনিয়াদপুর পৌরসভার কাউন্সিলার হওয়ার কারণে অবৈধভাবে গর্ভপাতের পাশাপাশি নাবালিকা মৃত্যুর মত অতি স্পর্শকাতর ঘটনার ক্ষেত্রেও অভিযুক্তকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। পথসভা থেকে এদিন বিজেপি শাসকদলের পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে আক্রমণ করা হয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত শুক্রবার রাতে বুনিয়াদপুরের শিবপুরের বাসিন্দা তৃণমূলের কাউন্সিলার খোকন বিশ্বাসের কাছে গর্ভপাত করানোর সময় এক নাবালিকার মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ ওঠে। ঘটনা জানাজানি হতেই বংশীহারি থানার পুলিশ তদন্তে নামার পরই চাঞ্চল্যকর তথ্যটি সামনে আসে। তদন্তে উঠে এসেছে কোনও রকম ডাক্তারি ডিগ্রি ছাড়াই বছরের পর বছর ধরে বাড়িতে ওষুধের দোকানের আড়ালে গর্ভপাতের মতো অবৈধ কাজ করত ওই কাউন্সিলার। বাড়িতে নার্সিংহোমের কায়দায় বেড ও অস্ত্রপাচারের সরঞ্জাম রেখে এই কাজ চালাত ওই কাউন্সিলার। ঘটনার পর থেকেই অবশ্য ওই কাউন্সিলার চম্পট দিয়েছে। বংশীহারি থানার থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে বছরের পর বছর ধরে এই ব্যবসা চললেও কেন পুলিশ কিছু জানলনা তানিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। শাসকদলের নেতা বলেই তাকে ছাড় দেওয়া হয়েছে বলে এদিন পথসভা থেকে বিজেপি নেতারা দাবি করেছেন। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ঘটনার তদন্ত চলছে। অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। বিজেপির জেলা সাধারণ সম্পাদক মানস সরকার বলেন, পুলিশের নাকের ডগায় দীর্ঘ এক দশকের বেশি সময় ধরে অবৈধভাবে গর্ভপাতের মতো কাজ করে গিয়েছে তৃণমূলের ওই কাউন্সিলার। গর্ভপাত করানোর সময় এক নাবালিকার মৃত্যু হয়েছে। এর আগেও এক মহিলার মৃত্যু হয় ওই কাউন্সিলারের হাতে। ঘটনার পরে নাবালিকার দেহ লোপাটের চেষ্টাও করা হয়। শাসকদলের নেতা বলেই এইসব বেআইনি কাজ করেও রেহাই পেয়ে যাচ্ছে। আমাদের দাবি পুলিশ অবিলম্বে ওই কাউন্সিলারকে গ্রেফতার করুক। তানাহলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।

  • ২১ টি রাজনৈতিক দলের ডাকা বন্ধের মিশ্র প্রভাব দক্ষিণ দিনাজপুরে

    অজয় সরকার,বালুরঘাট, ১০ সেপ্টেম্বরঃ পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে সারা দেশের ২১ টি রাজনৈতিক দলের ডাকা বন্ধের মিশ্র প্রভাব পড়ল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা জুড়ে। এদিন সকাল থেকেই বালুরঘাট শহরের বেশিরভাগ দোকানপাট বন্ধ ছিল। যদিও বালুরঘাটের বাইরে জেলার বিভিন্ন এলাকার দোকানপাট খোলাই ছিল। জেলায় বেসরকারী বাস পরিষেবা বন্ধ থাকলেও জেলার প্রায় সমস্ত রুটেই ছোট গাড়ি দাপিয়ে চলে। এমনকি যাত্রীসাধারণের দুর্ভোগ কমাতে এদিন সরকারী বাসের পর্যাপ্ত পরিষেবা চালু হয়। জেলার ব্যাঙ্কিং পরিষেবা স্বাভাবিক থাকলেও গ্রাহকের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে অনেকটাই কম ছিল। জেলার সমস্ত সরকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিতি স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম ছিল। তবে এদিন জেলার প্রায় প্রতিটি সরকারী দপ্তরে কর্মীরা যথাসময়েই হাজির হয়েছিলেন। এদিন সকালে সিপিএমের জেলা সম্পাদক নারায়ন বিশ্বাসের নেতৃত্বে বালুরঘাট শহরে বন্‌ধের সমর্থনে একটি মিছিল বের হয়েছিল। তবে জেলার কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর নেই।

  • বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদিতে জেলের জালে জ্যান্ত ইলিশ মাছ

    অজয় সরকার,বালুরঘাট, ১০ সেপ্টেম্বর : বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদিতে জেলের জালে জ্যান্ত ইলিশ মাছ উঠে আসার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল। সোমবার বালুরঘাট আত্রেয়ী নদীর সংলগ্ন চকভৃগু এলাকার ঘটনা। এদিন সকালে বাংলাদেশের ইলিশ বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদিতে পাওয়া যায় বলে দাবী ওই জেলেত। ঘটনার পর এদিন সকালে বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদী সংলগ্ন চকভৃগু বাজারে ওই জান্ত ইলিশ মাছটিকে নিয়ে যায় ওই জেলে। তা দেখার পরেই বালুরঘাট চকভৃগুর বাসিন্দা তা কিনে নেন। জানা যায়, ওই জেলে এর সঙ্গে আরও বেশ কয়েকটি ছোটো ইলিশ মাছ ধরেছিলেন। সবই কিনে নেন তিনি। সুরজিত বাবু জানান, বাজারে ওঠার পরেই তিনি তা ৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে চান। ৫০০ গ্রাম ওজনের ওই মাছটি তিনি ২০০ টাকা দিয়ে কিনে নেন। বিষয়টি জানার পরেই সকলে উৎসুক হয়ে ওঠেন। এদিন চকভৃগু বাজারে আসা জেলেরা জানান, বাংলাদেশের পদ্মা বা গঙ্গার ইলিশ বাংলাদেশ হয়ে আত্রেয়ী নদীতে এসেছে। আসলে আত্রেয়ী নদী বাংলাদেশ থেকে জেলার কুমারগঞ্জ হয়ে এদেশে প্রবেশ করে ৫২ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে আবার বালুরঘাটের ডাঙ্গী সীমান্ত এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। বাংলাদেশের চলনবিলে প্রবেশ করেছে নদী আত্রেয়ী। সেকারণে বাংলাদেশের চলন বিল থেকেই ইলিশ বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদীতে এসেছিল বলে মাছ ব্যবসায়ীদের দাবি। সুরজিৎ সরকার নামে ওই ক্রেতা জানান, সাতসকালে বাজারে গিয়ে একটি জ্যান্ত ইলিশ মাছ লাফাতে দেখতে পাই। তখন অনেকেই ভীড় জমিয়েছিল ওই মাছটি দেখতে । আসলে বরফ দেওয়া ইলিশ মাছ দেখতেই অভ্যস্ত সকলে। সেকারণে তাড়াতাড়ি করে সেটি কিনে ফেলেন। তবে এদিন ইলিশ আসায় অনেকেই উৎসাহিত আগামীতে আরও ইলিশ মিলবে বালুরঘাটের এই নদীতে।

  • উদ্ভোদনের মাত্র দুই বছরের মধ্যেই বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ছাদ ফুটো হয়ে পড়ছে জল

    অজয় সরকার,বালুরঘাট, ১০ সেপ্টেম্বর : উদ্ভোদনের মাত্র দুই বছরের মধ্যেই বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ছাদ ফুটো হয়ে জল পরার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল। সোমবার দশ তলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে দিয়ে জল। পড়তে শুরু করে। ২০১৬ সালে ঘটা করে উদ্বোধন করা হয়েছিল বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের। এই দুবছরের মধ্যেই হাসপাতালের ছাদ ফুট হয়ে জল পড়তে শুরু করায় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল তৈরীর গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন হাসপাতালে চিকিৎসা পরিষেবা নিতে আসা রোগীরা। যদিও এদিন দশ তলা এই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে দিয়ে জল পড়া নজরে আসে জেলা হাসপাতালের সুপার ডঃ তপন কুমার বিশ্বাসের। তিনি গোটা ঘটনা রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরকে জানিয়েছেন বলে জানান। প্রসঙ্গত, গত ২০১৬ সালে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট শহরের জেলা হাসপাতালের পেছনে দশতলা আধুনিক সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল চালু হয়। আধুনিকভাবে সেটি তৈরী করা হয়েছিল। আধুনিক মানের ও উন্নত যন্ত্রপাতিও আনা হয় এই হাসপাতালে। কিন্তু চালুর মাত্র দু বছরের মধ্যেই হাসপাতালের দেওয়ালের প্লাস্টার খসে পড়ছে। রং খুলে পড়ছে। এমনকি সামান্য বৃষ্টিতেই হাসপাতালের ছাদ ফুটে দিয়ে তা দিয়ে জল পড়তে শুরু করেছে। মাত্র দুবছরের মধ্যেই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের এই হাল হলে আগামীতে আর কতদিন তা ঠিকঠাক থাকবে না নিয়েই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। জেলা হাসপাতালের সুপার ডাঃ তপন কুমার বিশ্বাস জানান, এ ঘটনা তাদের নজরে এসেছে। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে জানানোর পাশাপাশি রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরেও তা জানানো হয়েছে। কয়েক কোটি টাকা ব্যায়ে তৈরী এই সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের এহেন গুণমান নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়েছেন রোগীর পরিবারের লোকজন। তারা জানান, ঝাঁ চকচকে এই হাসপাতালের কাজ অত্যন্ত নিম্নমানের হয়েছে। ফলে আগামীতে এই হাসপাতালের বিষয়ে স্বাস্থ্য দপ্তরের তদন্ত করে কাজের বরাতপাওয়া ঠিকাদার ও বাস্তুকারের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত।

  • গঙ্গারামপুরের এক তৃণমূল নেতার গাড়ি থেকে উদ্ধার হল গুলি ভরতি পিস্তল, গ্রেপ্তার গাড়ীর চালক।

    Newsbazar,24 ডেস্ক, ৪ সেপ্টেম্বরঃ দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুরের এক  তৃণমূল নেতার গাড়ি থেকে উদ্ধার হল গুলি ভরতি  পিস্তল।  বালুরঘাট থানার পুলিশ ওই নেতার গাড়ির চালককে গ্রেপ্তার করেছে। ধৃত চালকের  নাম সুমন দাস(২৫)। তার বাড়ি বংশীহারীতে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।  ঐ আগ্নেয়াস্ত্রটি  কি করে গাড়িতে এল তা নিয়ে তদন্তে পুলিশ। এ ব্যাপারে পুলিশ কিছু জানাতে অস্বীকার করেছে।   সূত্রে জানা গেছে,  গাড়ীর চালক  সুমন দীর্ঘদিন ধরেই গঙ্গারামপুরের ওই তৃণমূল নেতার গাড়ি চালাত। সোমবার রাত প্রায় ১২টা নাগাদ বালুরঘাট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গাড়িটিকে আটকায় পুলিশ। সুমনের কথাবার্তায় সন্দেহ হওয়ায় গাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। তল্লাশিতে গাড়ি থেকে গুলি ভরতি পিস্তলটি উদ্ধার হয়। রাতেই তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে এখনও। সূত্রে আরও জানা যায় যে ঘটনার পর থেকে তালা ঝুলছে সুমন দাসের বাড়িতে। এবিষয়ে পুলিশ প্রশাসন থেকে কোন কিছু জানাতে অস্বীকার করা হয়েছে, শুধু জানানো হয়েছে , গোটা ঘটনার তদন্ত চলছে।    

  • বালুরঘাটঃ তৃনমুল নেতাদের নাম ভাংগিয়ে খাবার চল হয়েছে বালুরঘাটে

    সরোজ কুন্ডু, বালুরঘাটঃ তৃনমুল নেতাদের নাম ভাংগিয়ে খাবার চল হয়েছে বালুরঘাটে। পর পর দুদিনের দুটি ঘটনা অন্তত এমনি প্রমান দেয়। প্রথম ঘটনায়, পিস্তল উচিয়ে সিভিকদের ধমকি দিতে গিয়ে গ্রেপ্তার হয়েছে সুমন দাস নামে এক গাড়ি চালক। তার কাছ থেকে পুলিশ সাত রাউন্ড গুলি ও ৯ এম এম পিস্তল ও একটি গাড়ি উদ্ধার করেছে। এদিন আদালতের মাধ্যমে সুমন দাসকে হেপাজতে নিয়েছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পেরেছে, অই উদ্ধার হওয়া গাড়িটি গংগারামপুরের প্রাক্তন বিধায়ক তথা বংশিহারি ব্লক তৃনমুল সভাপতি সত্যেন রায়ের। বেপরোয়া ভাবে গারি চালানো আটকাতে গেলে অই চালক পিস্তল নিয়ে নেমে হুমকি দেয় বলে অভিযোগ। যদিও সত্যেন বাবু এই ঘটনায় দায় এরিয়ে জানান, চালক কেন পিস্তল নিয়ে ঘুরছিল, জানা নেই। এদিন দুপুরে বিতর্কে জরান তৃন্মুল সাংসদ অর্পিতা ঘোষ। তার দেহরক্ষির মদের দোকান চালু করা নিয়ে পুলিস জনতা খন্ড যুদ্ধ হয়। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট শহরের একে গোপালন কলোনী এলাকায়। অভিযোগ, সাংসদের দেহরক্ষি শ্যামল সরকার প্রভাব খাটিয়ে বাসিন্দাদের কাছে এনওসি না নিয়েই লাইন্সেস নিয়ে দোকান চালু করেছেন। এতেই ক্ষীপ্ত হয়ে বাসিন্দারা মদের দোকান ভাংচুর চালায়।ঘটনাস্থলে পুলিস এলে ক্ষীপ্ত জনতা পুলিসের গাড়ি ভাংচুর করে। পুলিস কে লক্ষ করে ঢিল ছোড়া হলে ঘটনাস্থল থেকে পুলিস পালিয়ে যায়।পরে বিশাল বাহিনী পৌছে বিক্ষোভকারীদের উপর লাঠি চার্য করে।লাঠির আঘাতে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভ কারী আহত হয়েছেন। বিক্ষোভ কারীদের ঢিলের আঘাতে বালুরঘাট থানার আই সি জখম হয়েছেন। সাংসদ সাংবাদিকদের জানান, ওই দেহরক্ষী কে বদলে দিতে বলেছি, জনবহুল এলাকায় মদের দোকান চালু নিয়ে তদন্ত হোক। পুলিশ লাথিচার্জের বিষয় অস্বিকার করেছে।

  • দক্ষিন দিনাজপুরের পুলিশ সুপার এখন " শকুনি "

    সরোজ কুন্ডু, বালুরঘাটঃ দক্ষিন দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হয়ে উঠেছেন শকুনি। পাশার চালে তিনি কাত করেছেন বালুরঘাট বাসিকে। কৌরবদের পক্ষ নিয়ে যেমন শকুনি, তাদের রাজ্য জয় করিয়েছিলেন, তেমনি দিনাজপুর রুপকথার পক্ষ নিয়ে শকুনি রুপি প্রসুন ব্যানার্জি বালুরঘাটের নাটকের শহর বালুরঘাট এর নাট্য প্রেমিদের মন জয় করালেন। যিনি রাধেন, তিনি যে চুলও বাধেন, তার সাক্ষী থাকলো বালুরঘাট। চোপ আদালত চলছের পর দক্ষিণ দিনাজপুরের নাট্য সংস্থা দিনাজপুর রুপ কথার দ্বিতিয় নাটক “শকুনির পাশা” মঞ্চস্থ হল স্থানীয় মন্মথ মঞ্চে। রুদ্রপ্রসাদ চক্রবর্তীর রচনায় এই নাটকটি সাংসদ অর্পিতা ঘোষ ও দেবেশ চ্যাটার্জীর সহযোগিতায় নির্দেশনা করেন দক্ষিণ দিনাজপুরের পুলিশ সুপার প্রসুন ব্যানার্জী। মুখ্য ভুমিকায় শকুনির চরিত্রেও তিনিই। চ্যালেঞ্জিং একটি পৌরানিক চরিত্র বাস্তবায়ন কতটা করতে পারেন প্রসুন বাবু, তা দেখতে মুখিয়ে ছিল বালুরঘাট। হাউসফুল প্রেক্ষাগৃহ সেই ইঙিতই দিচ্ছিল। নতুন কুশিলব দের নিয়ে কাজ, অর্পিতা, দেবেশের মত পোরখাওয়া নাট্য বিশারদদের সামনে অভিনয়, অভিনয় চলাকালীন পুরো মেক আপ খুলে যাওয়া চ্যালেঞ্জ বারিয়েছে প্রসুন বাবুর। তবে তিনি হাত, পা, চোখ দুমরে মুচরে শকুনির অভিনয়ের পথে না হেটে, সতন্ত্র এক শকুনির অভিনয় করে যান, যেটাও ভাল লেগেছে, ভাবিয়েছে। বিশেস করে স্বরের সঠিক ব্যাবহার, হাতের ব্যাবহার প্রসুন বাবুর অভিনয় কে অন্য মাত্রা দিয়েছে। কৃষ্ণের ভুমিকাতে শান্তনু মুখার্জী ও দুর্যোধনের ভুমিকায় নিহার বিশ্বাস, পনকজ মহন্তেরা চলনসই। এছাড়াও তনিমা দত্ত,নুপুর হোড়,জগন্নাথ দত্ত, শুভঙ্কর রায়রা নিজের নিজের জায়গায় বেশ ভাল। তবে একা কাধে নাটক টা উত্রেছেন প্রসুন বাবু। চাকুরির সুবাদে নাটকের শহর বালুরঘাটে এসে অনেকেই নাটকের প্রেমে মজেছেন, প্রসুন বাবু ও তার ব্যাতিক্রম নন। তবে সোস্যাল মিডিয়ার জমানাতেও পরপর দুটি শো হাউস্ফুল রাখা, যে কোনো নাট্য দলের ইর্ষার কারন হতে পারে। এখানেই সফল শকুনি রুপি প্রসুন ব্যানার্জি।

  • দক্ষিন দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার অভিনব উদ্যোগ, কর্ম জীবনের জন্য স্বপ্ন পুরন ”ফ্রি কোচিং সেন্টার চালু বালুরঘাটে.

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৩০ আগস্টঃ জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে শুধুমাত্র  খেলাধুলোর ব্যাপারে আবদ্ধ না রেখে জেলার বেকার যুবক যুবতীদের কর্ম জীবনে প্রবেশের ক্ষেত্রে নতুন আলো দেখানোর জন্য ” স্বপ্ন পুরন ” নামে ফ্রি কোচিং সেন্টার চালু করল দক্ষিন দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থা। রাজ্যে এই প্রথম কোন জেলা ক্রীড়া সংস্থা জেলার খেলাধুলোর উন্নতি ঘটানোর  পাশাপাশি জেলার ছেলে মেয়েদের কর্ম জীবনের প্রবেশের সঠিক দিক নির্দেশের উদ্যোগ নিল। আজ বালুরঘাট স্টেডিয়ামের কনফারেন্স হলে এই ফ্রি কোচিং সেন্টার ” স্বপ্ন পুরনের ” উদ্বোধন করেন জেলার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ তথা বালুরঘাট ললিত মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক অভিজিত মুখার্জী। এছাড়াও এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলার বিশিষ্ট ডাক্তার সৌরভ কুন্ডু, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ তথা বি এড কলেজের শিক্ষক হরিপদ সাহা সহ জেলার অতিরিক্ত জেলা শাসক কৌশিক নাগ ও অনান্য জেলার শিক্ষাবিদগন। সকলেই থেকে জেলা ক্রীড়া সংস্থার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান। দক্ষিন দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক গৌতম গোস্বামী অনুষ্ঠানে বলেন, আমাদের   জেলার শিক্ষার মান অনেক উঁচু । প্রতি  বছরেই  মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে জেলার ছাত্র, ছাত্রীরা রাজ্যের মধ্যে উল্লেখ্যোগ্য রেজাল্ট করে থাকে। কিন্তু সেই সব ছাত্র ছাত্রীরা শুধু মাত্র জেলায় ভাল মানের কর্ম জীবনের প্রবেশের ক্ষেত্রে কোচিং সেন্টার না থাকায় তারা নিজেদের কর্ম জীবনের সঠিক পেশাতে নিজেদের নিয়োজিত করতে পারেনা, মূলত  সেদিকেই  লক্ষ রেখে জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে শুধুমাত্র খেলাধুলোর উন্নতির মধ্যে আবদ্ধ না রেখে জেলার মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের কর্ম জীবনের প্রবেশের ক্ষেত্রে সঠিক পেশা বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে  সঠিক দিশা দেখাতেই একদম ফ্রি কোচিং সেন্টার এই” স্বপন পুরন” বলে তিনি জানান।জেলা ক্রীড়া সংস্থ্যার পরিকাঠামো কোচিং সেন্টারকে ব্যবহার করতে দেওয়ার পাশাপাশি জেলার সরকারি  আধিকারিকরা( ডবলু বিসি এস) সহ জেলার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ গন এই কোচিং সেন্টারে   ছাত্র ছাত্রীদের বিনা পারিশ্রমিকে পঠন পাঠানের জন্য তারা  শিক্ষাদান করে তাদের কর্মজীবনের প্রবেশের ক্ষেত্রে সঠিক দিশা দেখাবে, বলে তিনি জানান। তিনি আরও বলেন সমাজ আশা করে প্রত্যেক মানুষ নিজ নিজ উদ্দ্যোগ এ কিছু একটা কাজ করুক যেখান থেকে সাধারন মানুষ কিছু উপকৃত হোক। আমরা সেটাই করার উদয়োগ নিয়েছি।

  • রায়গঞ্জ শহরে জেলা বিজেপি-র বিক্ষোভ ও মিছিল.

    Newsbazar 24, ডেস্ক, ২৯ অগাস্ট : উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপির ডাকে আজ রায়গঞ্জ শহরে   বিক্ষোভ ও  মিছিল সংঘটিত হল। গতকাল  ইটাহার গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস, তাদের কর্মীদের ওপর আক্রমণ এবং রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি  কর্মীদের খুন, এই সকল ঘটনার প্রতিবাদে আজ ধিক্কার মিছিলের ডাক দিয়েছিল  উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপি। এই মিছিল শুরু হয় রায়গঞ্জ শহরের শিলিগুড়ি মোড় থেকে। তারপর শহরের রাজপথ পরিক্রমা করে মিছিল শেষ হয় বিদ্রোহী মোড়ে। প্রায় হাজার খানেক বিজেপি কর্মী-সমর্থক মিছিলে যোগ দেয়। ধিক্কার মিছিলের নেতৃত্ব দেন বিজেপি র জেলা সভাপতি শংকর চক্রবর্তী। মিছিল শেষে বিদ্রোহী মোড়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কুশপুতুল দাহ করে বিজেপি কর্মীরা। প্রসঙ্গত, গতকাল ইটাহার গ্রাম পঞ্চায়েতে বোর্ড  গঠন ও প্রধান নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি-র মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, বোমাবাজির ঘটনা ঘটে।   ইটাহার গ্রাম পঞ্চায়েতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকা সত্ত্বেও তৃণমূল কংগ্রেস সন্ত্রাস করে তাদের বোর্ড গঠন করতে বাঁধা সৃষ্টি করে বলে অভিযোগ বিজেপি-র এবং তাদের  কর্মীসমর্থকদের ব্যাপক মারধর করে। এই ঘটনার প্রতিবাদেই আজকের এই বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন বলে তারা জানান এবং  মিছিলের জন্য আজ রায়গঞ্জে ব্যাপক পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।