Newsbazar24.com / সাপ্লিমেন্ট

  • বিয়ে মানেই কেনাকাটার লম্বা ফর্দ, খরচ করুন প্ল্যান করে

    14-Apr-19 02:45 pm


    newsbazar24: বিয়ের কেনাকাটা করার আগে থেকেই একটা প্ল্যান করে নিতে হবে কখন কোনটা কিনবেন৷ না হলে প্রয়োজনের সময় হাতের কাছে ঠিক জিনিসটি নাও পেতে পারেন৷ প্ল্যানিং-এ সাহায্য করলো ‘অন্য সময়’ বিয়ে মানেই কেনাকাটার লম্বা ফর্দ৷ কনের বেনারসি থেকে বরের আংটি, তত্ত্বে পাঠানোর হাজারো টুকিটাকি কোনও কিছুই তো ফেলনা নয়৷ তাই এই লম্বা লিস্টের কোনও কিছুই যাতে বাদ না যায়, তার জন্য আগে থেকেই পরিকল্পনা করুন৷ কখন কোনটা কিনে নেবেন আগে থেকেই ঠিক করে রাখুন৷ যেমন ধরুন বিয়েতে কনের বেনারসিটা অন্তত তিন মাস আগে কিনে ফেলাটা খুব দরকার৷ অথবা বিয়ের দিন ডিজাইনার শাড়ি পড়ার প্ল্যান থাকলেও সেটাও আগে ভাগেই তৈরি করিয়ে নিন৷ না হলে শাড়ির সঙ্গে মানানসই ব্লাউজটা বানাবেন কী করে৷ অনেক সময়েই বিয়ের গয়না আগে থাকতেই কেনা থাকে৷ যদি না থাকে তাহলে শাড়ি কেনার সঙ্গে সঙ্গে গয়নাগাটি কেনার ব্যাপারটাও মিটিয়ে ফেলুন৷ সঙ্গে কিনে ফেলতে হবে বরের ধুতি পাঞ্জাবি, আঙটি ইত্যাদি৷ দেখবেন এগুলো কিনে ফেললেই অনেকটাই নিশ্চিন্ত বোধ করবেন৷ তবে শুধু বর কনের সাজ নয়, বিয়ের তত্বের কেনাকাটাও সমান গুরুত্বপূর্ণ৷ তত্ত্বে বর কনের জন্যও যেমন আলাদা করে জামাকাপড়, প্রসাধনী থাকে, তেমনই বরের পরিবারের অন্যান্যদের জন্যও উপহার স্বরূপ পোশাক ও অন্যান্য সামগ্রী থাকে৷ খুব ভালো হয় যদি কনের বেনারসি কেনার সঙ্গে সঙ্গেই তার অন্য প্রয়োজনীয় পোশাক ও প্রসাধনীগুলো কিনে নেওয়া হয়৷ প্রসাধনী কেনার সময় মাথায় রাখুন, যেগুলি একান্তই প্রয়োজনীয়, কেবল সেগুলিই কিনুন৷ এবং অন্য আর একটা দিন ঠিক করুন পরিবারের অন্যদের জন্য উপহার কেনার৷ আগে থেকেই কার জন্য কী কেনা হবে তা ঠিক করে রাখুন৷ প্রয়োজনে লিখেও রাখতে পারেন৷ তবে তত্বের কেনাকাটা মানেই শুধু পোশাক আশাক আর প্রসাধনী নয়, তত্বের মিষ্টিও একটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার৷ তাই তত্বের জন্য আলাদা মিষ্টি ও নোনতা খাবার আগে থেকেই অর্ডার করুন, যাতে ঠিক সময় পাঠাতে পারেন৷ ড্রাই ফ্রুটস দিতে চাইলে বিয়ের দুই একদিন আগেই সেগুলি কিনে ফেললুন৷
    বিয়ের খাওয়া দাওয়া ঃ খাওয়াদাওয়ার ব্যাপারটা বিয়েতে খুব গুরুত্বপূর্ন৷ সুতরাং এব্যাপারেও আগে থেকেই নজর দেওয়াটা খুব জরুরি৷ এখনকার বিয়ের খাওয়াদাওয়ার চিত্রটা কিন্তু আগের চেয়ে অনেক বদলে গেছে৷ তাই রুচি ও চাহিদার কথা ভেবে বিয়ে বাড়ির মেনুতে রোজই নতুন নতুন খাবার নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করা হচ্ছে৷ আর শীতের মরশুমে নতুন ধরনের ডিশ পরিবেশন করার অনেক সুযোগও থাকে৷ কারণ বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়েও এই সময়টাই নানান সবজি, ফল ইত্যাদি পাওয়া যায়৷ আগে থেকেই ক্যাটারারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন৷ কী ধরনের খাবার মেনুতে রাখতে চান, আলাদা করে আলোচনা করে নিন৷ আজ কাল কিন্ত্ত আগে থেকেই খাবার টেস্ট করিয়ে নেওয়ার একটা চল হয়েছে৷ যদি নতুন কোনও খাবার পরিবেশন করার কথা ভাবা হয়, তাহলে খাবারটা আদতে নিমন্ত্রিত অতিথিদের কতটা ভালো লাগবে, তার একটা ধারণা তৈরি হয়ে যাবে৷ আলাদা করে নিরামিষ ও আমিষ মেনুর তালিকাও তৈরি করুন৷ শেষ পাতে মিষ্টিমুখের কথাটাও মাথায় রাখুন৷ শীতের মরশুমে মিষ্টি নিয়ে নানান ধরনের পরীক্ষা নিরীক্ষা করা যেতেই পারে৷ নতুন ধরনের মিষ্টি খাইয়ে অতিথিদের চমকে দিতে পারেন৷ নানান ফল দিয়ে তৈরি মিষ্টি কিন্ত্ত এখন বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে৷ তাছাড়া মাথায় রাখতে পারেন সুগার ফ্রি বা লো ক্যালোরি মিষ্টির কথাও৷ তবে সবার আগে বিয়ের রাতে নিমন্ত্রিতদের সংখ্যার একটা আন্দাজ থাকাটা খুবই জরুরি৷ সেই মতোই খাবার দাবারের ব্যবস্থা করুন৷ আগে পরিবারে কোনও বিয়ে লাগলে, আত্মীয় স্বজনরাই সকলে মিলে সমস্ত দায়িত্ব সামলে দিতেন৷ কিন্তু এই ব্যস্ত জীবনে সেটা আর সম্ভব নয়৷ সেই জন্যই এখন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থাগুলির এতটা রমরমা৷ এঁদের সাহায্য নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ৷ আপনি বিয়ের দিন ঠিক যেমন আয়োজন চাইছেন, এঁরা ঠিক তেমনটাই করে দেবেন৷ মণ্ডপ সজ্জা থেকে, ফুল কেনাকাটা, খাওয়াদাওয়ার আয়োজন করা, নিমন্ত্রিত অতিথিদের দেখাশোনা করা, সব কিছুই এঁদের দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে৷ শুধু আপনি ঠিক কী চান সেটা কিন্ত্ত এঁদের পরিষ্কার করে জানিয়ে দিলেই হবে৷

    Read : 1
    Edit

Related Posts