Newsbazar24.com / রাজ্য

  • লন্ডনের একটি দুর্গের আদলে তৈরী হচ্ছে সীমান্ত শহর হিলির বিপ্লবী সংঘের দুর্গা মণ্ডপ তার

    09-Oct-18 01:17 am


    বালুরঘাট,৮ অক্টোবর— এবারে পূজায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের গ্রীন সিটি প্রকল্পকে ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সীমান্ত শহর হিলির বিপ্লবী সংঘের। উত্তরবঙ্গের বিগ বাজেটের পূজাগুলির মধ্যে অন্যতম এই পূজা মন্ডপটি প্রতিবছর শুধু দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা‌ই নয়, পার্শ্ববর্তী মালদা, উত্তর দিনাজপুর এমনকি শিলিগুড়ি থেকে বহু মানুষের ঢল নামে। এবারেও তার ব্যতিক্রম হবে না বলে আশাবাদি ক্লাব কর্তৃপক্ষ। এবারে বিপ্লবী সংঘের পূজা ৫০ বছরে পা দিল। লন্ডনের একটি দুর্গের আদলে তৈরী হচ্ছে সুবিশাল মন্ডপ। বালুরঘাটের শিল্পী রাজনারায়ন সাহা চৌধুরি গত কয়েক মাস ধরে দিনরাত পরিশ্রম করে মন্ডপ গড়ে চলেছেন। প্রায় ৭০ ফুট উঁচু ও ১০৬ ফুট চওড়া এই মন্ডপে গেলে মিলবে আস্ত একটি রাজবাড়ির ছোঁয়া। মন্ডপের সামনে একটি আস্ত বাগান তৈরী করা হচ্ছে। সেখানে কৃত্রিম সবুজ ঘাসের আচ্ছাদন যেমন থাকবে, তেমনই থাকবে সোনালি ও রুপালি রং এর গাছের পাতা থেকে হরেক কারুকার্য। এই বাগানে থাকবে জ্যান্ত টিয়া, ময়না, কাঠবিড়ালি, ঘুঘু , বাবুই ও প্রজাপতি। এবারের পূজা কমিটির সম্পাদক হিলির বিশিষ্ট ব্যবসায়ী তথা বঙ্গরত্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সমাজসেবী অমূল্যরতন বিশ্বাস জানান, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের গ্রীন সিটি প্রকল্পকে এবারের এই মন্ডপসজ্জার মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে। মন্ডপের ভেতরে থাকছে রাজবাড়ির পুরানো আমলের নানা নিদর্শন। থাকছে রাজবাড়ির পুরানো লন্ঠন। মন্ডপের গায়ে থাকছে হরেক রকমের ও নানা রং-‌এর জরির সুক্ষ্ম কারুকার্য। এজন্য গত ৩ মাস ধরে ৪০-‌৫০ জন মহিলারা পুঁথি, কলকা, ফুল নিয়ে এসব কাজ করে চলেছেন। অপটিক্যাল ফাইবারকে কাজে লাগিয়ে হাতি, হরিণ ও সিংহ তৈরী করা হচ্ছে। এছাড়াও ব্রিটিশ আমলে রাজপ্রাসাদে থাকা গিটার, বেহালা, হারমোনিয়াম, তবলা সহ হরেক রকমের বাদ্যযন্ত্রের দেখা মিলবে এই প্রাসাদে। মন্ডপের ভেতরের আলোক সজ্জার দায়িত্বে রয়েছেন ত্রিমোহিনীর আলোকশিল্পী তিলক সাহা। গ্রিন সিটির থিমকে ফুটিয়ে তোলা হবে এই মন্ডপে। লন্ডন শহরে যে ধরণের আলোর ব্যবস্থা রয়েছে, অবিকল সেই ধরণের আলোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে এখানেও। তবে মন্ডপের বাইরে চন্দননগরের আলোর কারসাজি দেখা মিলবে এবারেও। ক্লাবের সুবর্ণ জয়ন্তী বর্ষে চন্দননগরের পাশাপাশি নদীয়া থেকে এসেছেন আলোকশিল্পীরা। মন্ডপ ও প্রতিমার সঙ্গে সাজুয্য রেখে নবদ্বীপের মৃৎশিল্পী নাড়ুগোপাল পাল মূর্তি গড়ে চলেছেন। পূজা কমিটির সম্পাদক অমূল্য বাবু জানান, প্রতিবারের মতো এবারেও দশমীর পরদিন হিলির যমুনা নদীর পাড়ে আতস বাজির প্রদর্শন অনুষ্ঠিত হবে। এবারে তাকে বাড়তি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পূজা উদ্যোক্তাদের দাবি, এবারের এই পুজা কেবল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলারই নয়, উত্তরবঙ্গের অন্যতম সেরা পূজা হিসাবে বিবেচিত হবে। এজন্য সমস্ত রকমের পরিকল্পনা নিয়ে দিনরাত এক করে কাজ করে চলেছেন সমস্ত শিল্পী ও পূজা উদ্যোক্তারা।

    Read : 0
    Edit

Related Posts

চালুর আগেই স্থগিত হয়ে গেল দূরদর্শনে ভার্চুয়াল ক্লাস
ধোঁয়া মুক্ত করার জন্য মানিকচকের নারায়নপুর চরের বাসিন্দাদের দেওয়া হল বিনামূল্যে এলপিজি গ্যসের কানেকশান।
শুরুহল মালদার মহা ঐতিয্যবাহী রামকেলি উৎসব ২০১৯
মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় রাজি জুনিয়র চিকিৎসকরা, তবে একটি শর্তে
ভস্মীভূত গৃহস্থ বাড়ি, দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবি নিয়ে অসহায় দম্পতি প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে
মুখ্যমন্ত্রী জনগণকে বিভ্রান্ত করে আমাদের বিরুদ্বে ব্যবহার করতে চাইছেন অভিযোগ জুনিয়র চিকিৎসকদের
মুখ্যমন্ত্রীকে চিকিৎসকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার পরামর্শ রাজ্যপালের।
মানিকচক থানা পুলিশের সাফল্য,মানিকচক উচ্চ বিদ্যালয়ের চুরি যাওয়া কম্পিউটার সামগ্রী উদ্ধার
রাজ্যজুড়ে পালিত হলো বিশ্ব রক্ত দাতা দিবস